House Of Soul

Reg. No: S0018301 of 2021-2022

+91 9674173922

hos.kol2021@gmail.com

A-81, New Raipur Road

Kolkata 700 084

Blog

জীবন পথিকের চোখে – ২

অমিত মুখোপাধ্যায় এক জীবন পথিক। তাঁর অপরূপ গদ্য কবিতার মত রোমক এবং শ্লোকের মতো উদ্দীপক। ওনার লেখা কিছু মুক্ত গদ্য পাঠকের কাছে তুলে ধরা হলো এখানে।

 

 মুক্ত গদ্য

 অমিত মুখোপাধ্যায়

 

 

তৃষ্ণা

কাঁচের জানালা দিয়ে অঝোর কিম্বা রিমঝিম বৃষ্টি দেখিনি অনেক দিন। মেটে ঘরের দাওয়ায় বসে বাতাসে উড়ে যাওয়া বৃষ্টি দেখিনি অনেক দিন। বৃষ্টি ভালো লাগে, কারণ বৃষ্টির প্রতিটি ফোঁটায় থাকে মেঘ ও রোদ্দুরের গন্ধ। সেই গন্ধের নেশা রক্তে মেশে। মনে, বনে, মাঠে প্রান্তরে অজস্র বীজ অঙ্কুরিত হয়। জৈষ্ঠ পার হয়ে আষাঢ় আসবো আসবো করছে। অথচ ঝাড়খণ্ডের আকাশে এখনও বর্ষার পূর্বাভাষ নেই। পালামৌয়ের মাটি, গাছপালা, বন্যপ্রাণী, আকাশ, বাতাস তৃষিত হয়ে আছে। যতদূর চোখ যায় ঝলসে যাওয়া সবুজ কিম্বা শুকিয়ে কাঠ হয়ে যাওয়া গাছপালা, তামাটে হয়ে যাওয়া তৃণভূমি।  গ্রীষ্মের অন্তিম লগ্নের দুপুরে তাপ প্রবাহ। এই অবস্থায় ঝাড়খণ্ডের প্রতিটি ধূলিকণা আশমানি জলের অপেক্ষায় আছে। আমিও কান পেতে আছি বৃষ্টির নুপুরধ্বনি শোনার জন্য। কিন্তু বৃষ্টি এখনও তার রূপ- রস- গন্ধ নিয়ে আসেনি। তাই বাতাসে উড়ো জলকণা নেই, সেই জলকণার শরীরে লেখা ‘সুপ্রভাত’ শব্দটিও নেই। তাই আমাকেই উচ্চারণ করতে হল, সুপ্রভাত। বৃষ্টি, তুমি তো জানো, গভীরতম যে কোনও শব্দই উচ্চারণের অতীত।

 

স্বপ্ন

কোনও চোখে ঝিলিক থাকে, কোনও চোখে দৃষ্টি। কোনও চোখের পলক পড়লে সেখান থেকে ঝরে পড়ে মেঘের কুচি। চোখের তারায় ফুটে ওঠে আকাশ, নদী, বন, পাহাড়, ভুবনডাঙা। ওই চোখের পাতাকে আঙুল দিয়ে ছুঁয়ে ফেললে সামনে একের পর এক দরজা খুলে যায়। সেই সব দরজা পেরিয়ে  পৌঁছে যাওয়া যায় মাটির কাছে। চোখের জলে যে পুকুর তৈরি হয় তার পাশে হেলেঞ্চা ঝোপে ফড়িং ওড়ে। ফোটে বন কলমির ফুল। চোখের জলে ঝাঁপিয়ে পড়ে মাছরাঙা, যদি একটা রুপোলি স্বপ্নের মাছ ধরা দেয়। কোনও দিন কি তেমন চোখের দিকে তাকিয়ে দেখেছো? দেখলে দেখবে সেই চোখের ভিতর একের পর এক সিঁড়ি নেমে গেছে। গভীর থেকে গহনে। পায়ে পায়ে নেমে গেলে  বুকের ভিতর থাকা অট্টালিকার দরজা খুলে যায়। তার পর আর কিছু খুঁজে পাওয়া যায় না। সে এক অনন্ত ভুলভুলাইয়া। তবু চোখে চোখ রাখতে ইচ্ছে হয়। চোখের পাতায় লেগে থাকা স্বপ্ন, সংকল্প, প্রত্যয় দু ঠোঁটে মেখে নিতে ইচ্ছে হয়। ওই চোখের আলোয় সব অন্ধকার মুছে দিতে ইচ্ছে হয়। কোনও চোখে ঝিলিক থাকে, কোনও চোখে দৃষ্টি। কোনও কোনও চোখের তারায় জ্বলে দৃষ্টিপ্রদীপ। এমন চোখে চোখ রাখতে চাই সততা। কামনা করি, সবাই চোখে চোখ রাখার শক্তি পাক।

 

আহ্বান

তোমার অবহেলা আমার বর্ষাবনে কদম হয়ে ফোটে। অথচ যে ফুল ফুটলো সবার অগোচরে তার ঘ্রাণ আর রেণু সব তোমার জন্য গচ্ছিত আছে। মুখ ঘুরিয়ে নিলেও অরণ্যে ফুল তোমার জন্যই ফুটবে। আমি সেই ফুলকে তোমার জন্যই দু হাতে আগলে রাখব। জেনে রাখো, ভালোবাসার ঠিকা যদি তোমার হাতে থাকে আমি সেই ভালোবাসার নিরন্তর শ্রমিক। জন্ম জন্মান্তরে এই পথিককে তুমি ভালোবাসার দরজায় পৌঁছে দিয়েছিলে, সে দিন থেকে আমি তোমার জন্যই বসে আছি সেই দোরগোড়ায়। এসো, আমার হাত ধরো। আমি তোমার পাশে পাশে হাঁটতে চাই। কারণ আমার যাবতীয় প্রেম অপ্রেমের কেন্দ্রে তুমি। হে আমার বার্ধক্য ছুঁয়ে ফেলা জীবন, তোমার অবহেলা আমার বর্ষাবনে কদম হয়ে হয়ে ফোটে। তোমার ভালোবাসা উপচে পড়া দিল দরিয়ায় শালুক ফোটায়। তাই এসো, রোমাঞ্চকর  বার্ধক্য উদযাপনের প্রতিটি মুহুর্তে আমার সঙ্গী হও। হ্যাঁ, জীবনের প্রতি এই আহ্বান আমার, আর সকলের প্রতি জানাই সুপ্রভাত।

 

আষাঢ়

আষাঢ় এলেই আমাকে ভিজিয়ে দেয় বৃষ্টির পরম আদর। আষাঢ় এলেই চোখের দিগন্তে ভেসে ওঠে বৃষ্টির তাথৈ নাচ। প্রতি বর্ষায় বৃষ্টি আমাকে নতুন কিছু দেয়। এমন কী যে আষাঢ়ে সবাই অতিমারীর আতঙ্কে দুয়ারে খিল এঁটে বসে, তখনও আমি বৃষ্টির সঙ্গে ঘুরে বেড়িয়েছি সাঁওতাল পরগনার পাহাড়িয়া গ্রামে, সারাণ্ডা অরণ্যে কোয়েনা নদীর ধারে, উত্তরবঙ্গে তোর্সা নদীর পারে, চা বাগানে, খেত খামারে। শুধু বৃষ্টি নয়, আষাঢ় এলেই মনে পড়ে বন্ধু বিশ্বজিৎ সাহার জলদাপাড়া অভয়ারণ্যের কোল ঘেঁষা কাঠের ঘরে বসে  তক্ষকের ডাক শোনা, দার্জিলিংয়ে ধুপি গাছের গায়ে লেপটে থাকা জলভরা মেঘ, উজান আসামে বানভাসি ব্রহ্মপুত্র। আষাঢ় এলেই সাধারণত ভুবন জুড়ে বৃষ্টি নামে। সেই সঙ্গে আমার মরুপ্রায় অন্তরেও ছড়িয়ে যায় বৃষ্টির সোহাগ। তবু ভেজে না মনের তপ্ত বালি। তাই আষাঢ় সকালেও ‘তৃষ্ণা’ থাকে আমার ‘বক্ষ জুড়ে।’ এবারে আষাঢ়ের একাধিক দিন অতিক্রান্ত। কিন্তু এখনও বর্ষা কেমন রূপকথা হয়ে আছে। আকাশে বাদল মেঘের সঞ্চার দেখলেই মনে হয় বর্ষা এল। কিন্তু দগ্ধ এ ধরণীর বুকে ছিটে ফোঁটার বেশি বৃষ্টি নামে না। তাই এই আষাঢ় দিনে কামনা করি, বৃষ্টি নামুক অঝোর ধারায়। বৃষ্টির ছোঁয়ায় সিক্ত হোক মাটি, স্নিগ্ধ হোক বাতাস, নম্র হোক  মন। দিন ভালো যাক।

4 1 vote
Rate this article
Facebook
Twitter
LinkedIn
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
Categories
Recent Topics
dreamy eye
জীবন পথিকের চোখে - ২
অমিত মুখোপাধ্যায় এক জীবন পথিক। তাঁর অপরূপ গদ্য কবিতার মত রোমক এবং শ্লোকের...
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x